যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে ৪০টি এফ-১৬ যুদ্ধবিমান কিনতে চায় তুরস্ক

অথর
নিজস্ব প্রতিবেদক   বাংলাদেশ
প্রকাশিত :৮ অক্টোবর ২০২১, ৬:৩৪ অপরাহ্ণ
যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে ৪০টি এফ-১৬ যুদ্ধবিমান কিনতে চায় তুরস্ক

৪০টি এফ-১৬ যুদ্ধবিমান কিনতে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে অনুরোধ জানিয়েছে তুরস্ক। যুদ্ধবিমানগুলি লকহিড মার্টিনের নির্মিত বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট সূত্র ।

এছাড়া বিদ্যমান যুদ্ধবিমান আধুনিকায়নে ৮০টি যন্ত্রও চেয়েছে ন্যাটো সদস্য দেশটি। যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে এফ-৩৫ যুদ্ধবিমান ক্রয়ে ব্যর্থ হওয়ার পর নিজের বিমান বাহিনীকে আধুনিকায়ন করতে চাচ্ছে তুরস্ক। সংশ্লিষ্ট সূত্রের বরাতে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ খবর দিয়েছে। কোটি কোটি ডলারের এই চুক্তি নিয়ে কাজ করছে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র সামরিক বিক্রয় বিভাগ। এতে মার্কিন সিনেট ও কংগ্রেসের অনুমোদন নিতে হবে। এমনকি এই চুক্তি বাতিল করে দেওয়ার ক্ষমতাও কংগ্রেসের আছে।

মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলছেন, কংগ্রেসকে অবহিত করার আগে প্রস্তাবিত প্রতিরক্ষা বিক্রয় কিংবা হস্তান্তর নিয়ে নীতিগতভাবে আমরা কোনো মন্তব্য করতে পারছি না। এ নিয়ে ওয়াশিংটনের তুর্কি দূতাবাসের কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

এর আগে শতাধিক এফ-৩৫ যুদ্ধবিমান ক্রয়ের চেষ্টা করেছিল আংকারা। কিন্তু তুরস্ক রাশিয়ার কাছ থেকে এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ক্রয়ের পর সেই প্রকল্প বাতিল করা হয়েছে। এতে কয়েক দশকের তুর্কি-মার্কিন সম্পর্কে ফাটল দেখা দিয়েছে।

গেল ৫ বছর ধরে সিরীয় নীতি, মস্কোর সঙ্গে আংকারার সম্পর্ক, পূর্ব ভূমধ্যসাগরে তুরস্কের নৌ উচ্চাকাঙ্ক্ষা, তুরস্কের রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন ব্যাংকের বিরুদ্ধে মার্কিন অভিযোগ ও বাকস্বাধীনতাসহ তুরস্কের নাজুক মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে দুই দেশের মধ্যে ব্যাপক মতবিরোধ দেখা গেছে।

তুরস্কের কাছে যুদ্ধবিমান বিক্রয়ে মার্কিন কংগ্রেসের অনুমোদন পাওয়া কঠিন হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। কারণ ন্যাটো মিত্রকে নিয়ে কংগ্রেস সদস্যদের মধ্যে গভীর তিক্ততা আছে। বিশেষ করে মস্কোর কাছ থেকে আংকারার এস-৪০০ ক্রয় ও মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে দ্বন্দ্ব চরমে পৌঁছেছে।

এছাড়া রুশ আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ক্রয়ের পর তুরস্কের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। ২০২০ সালের ডিসেম্বরে তুরস্কের প্রতিরক্ষা শিল্প অধিদপ্তর ও তার প্রধান ইসমায়েল ডেমিরসহ আরও ৩ ব্যক্তিকে কালোতালিকাভুক্ত করে ওয়াশিংটন।

এরপর থেকে রুশ অস্ত্র ক্রয়ে তুরস্ককে বারবার হুঁশিয়ারি করে যাচ্ছে মার্কিন প্রশাসন। কিন্তু গত সপ্তাহে রাশিয়া থেকে দ্বিতীয় দফায় এস-৪০০ ক্রয়ের আভাস দিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান। এতে ওয়াশিংটনের সঙ্গে মস্কোর সম্পর্কের ফাটল আরও গভীর হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।