শীতার্তদের পাশে দাঁড়ানো ইবাদত – U.S. Bangla News




শীতার্তদের পাশে দাঁড়ানো ইবাদত

ইউ এস বাংলা নিউজ ডেক্স:-
আপডেটঃ ৮ জানুয়ারি, ২০২৩ | ৮:২০
মাঘের শীতে নাকি বাঘও কাঁপে, কিন্তু মাঘ আসার আগেই বাঘ কাঁপানো শীত এসে গেছে এবার। প্রচণ্ড শীত ও ঠাণ্ড বাতাসে জনজীবনে নেমে এসেছে স্থবিরতা। মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে সর্দি-কাশি-হাঁচি-জ্বর, হুপিংকাশিসহ শীতকালীন ডায়রিয়ায়। অসহায়, দরিদ্র ও ছিন্নমূল মানুষরা দিন কাটাচ্ছে সীমাহীন কষ্টে। ফুটপাত ও বস্তিতে থাকা মানুষরা গরম পোশাকের অভাবে পার করছে নির্ঘুম রাত। পথে-ঘাটে, খোলা আকাশের নিচে শৈত্যপ্রবাহে অনেকে যাপন করছে দুর্বিষহ জীবন। এ কষ্টে কখনো নিভে যায় কারো জীবন প্রদীপ। সক্ষমতার অভাবে অনেকেই কিনতে পারছে না গরম পোশাক। এ অবস্থায় শীতার্ত মানুষের পাশে উপস্থিত হওয়ার সময় এখনই। ধর্মীয় ও সামাজিক সংগঠন, দাতব্য প্রতিষ্ঠান, দলমত নির্বিশেষে সবারই শীতকালীন সেবা উদ্যোগ গ্রহণ

করা জরুরি । প্রবল শৈত্যপ্রবাহের সীমাহীন কষ্টের মধ্যে তাদের মুখে একটু হাসি ফোটানোর কাজ শুরু করা দরকার। ইসলামে দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটানো বা মানবসেবার গুরুত্ব অনেক। কুরআন হাদিসের বাঁকে বাঁকে মানব ও মানবতার সুরক্ষার কথা বর্ণিত হয়েছে। বিপদাক্রান্ত যেকোনো মানুষের পাশে দাঁড়ানোকে আল্লাহর প্রিয়ভাজন হওয়ার সুবর্ণ সুযোগ বলে ঘোষণা করা হয়েছে। এক হাদিসে নবীজী বলেন, কেউ যখন অন্যের কল্যাণে নিয়োজিত থাকে তখন আল্লাহও তার কল্যাণে রত থাকেন। (সহীহ মুসলিম: ৬৭৪৬) শীতার্ত মানুষের দিকে সহানুভূতি ও দয়ার হাত বাড়িয়ে দেওয়া সামর্থ্যবানদের নৈতিক ও মানবিক দায়িত্ব। শীত আক্রান্ত মানুষের পাশে দাঁড়নোর এ সুযোগকে লুফে নেওয়া উচিত। কেননা অন্যের কষ্ট লাঘব করলে নিজের লাভই

বেশি। কিভাবে? নবীজী ইরশাদ করেন, কোনো মুসলমান অন্য মুসলমানকে কাপড় দান করলে যতক্ষণ ওই কাপড়ের টুকরা তার কাছে থাকবে ততক্ষণ পর্যন্ত দানকারী আল্লাহর হেফাজতে থাকবে। (সুনানে তিরমিজি : ২৪৮৪) মানুষের জীবনে প্রয়োজন আর বিপদের কোন শেষ নাই। নবীজী মানুষের প্রয়োজন পূরণ এবং বিপদ মুক্তির পথ বর্ণনা করে বলেন, যে ব্যক্তি অন্য মুসলমানের প্রয়োজন পূরণ করবে আল্লাহ তায়ালাও তার প্রয়োজন মিটিয়ে দেবেন। আর যে ব্যক্তি অন্য মুসলমানের বিপদ দূর করবে, আল্লাহ তাআলাও তার বিপদ দূর করে দেবেন। (সুনানে আবু দাউদ : ৪৮৯৩) মানুষের অন্যতম একটি মৌলিক প্রয়োজন হলো বস্ত্র। শীতকাতর মানুষের জন্য ঠাণ্ডা নিবারক বস্ত্রের প্রয়োজন আরো অনেক বেশি। এ প্রয়োজন

পূরণকারীর জন্য রয়েছে জান্নাতি সবুজ পোশাকের প্রতিশ্রুতি। নবীজী ইরশাদ করেন, যে মুসলমান বস্ত্রহীন তাকে বস্ত্র দান করবে, আল্লাহ তায়ালা তাকে জান্নাতের সবুজ বর্ণের পোশাক পরাবেন। খাদ্য দান করলে তাকে জান্নাতের ফল খাওয়াবেন, পানি পান করালে জান্নাতের শরবত পান করাবেন। (সুনানে আবু দাউদ: ১৬৮২) সরকারি উদ্যোগের পাশাপাশি বিভিন্ন বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান, কোম্পানি, সংগঠন এবং বিত্তবানরা ভালোবাসা ও সহানুভূতির হাত বাড়ালে শীতার্ত মানুষের কষ্ট লাগব হতে পারে। তাছাড়া প্রত্যেকেই নিজ নিজ অবস্থান থেকে দান ও সহানুভূতির পরশ বুলালে শীতার্ত মানুষ পেতে পারে উষ্ণ শান্তি। লেখক: শিক্ষক, শেখ জনূরুদ্দীন রহ. দারুল কুরআন মাদ্রাসা চৌধুরীপাড়া, ঢাকা-১২১৯
ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


শীর্ষ সংবাদ:
ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা তুলে নিয়েছেন বেনজীর, আলামত পেয়েছে দুদক ঢাকার পানিতে মিলল ক্যানসার সৃষ্টিকারী উপাদান স্বাভাবিক জীবনে না ফিরলে ছাড় নয়: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী চীনে ১২ কোটি বছর আগের ডাইনোসরের ৪০০ পায়ের ছাপ সোয়া দুই কোটি শিশুকে ভিটামিন ‘এ’ প্লাস খাওয়ানো হবে শনিবার গার্মেন্ট শ্রমিকদের টিসিবির স্মার্ট কার্ড দেওয়ার সুপারিশ জেনারেল আজিজের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ পর্যালোচনা করছে দুদক যুক্তরাজ্যে ভেঙে দেওয়া হলো পার্লামেন্ট ভাষণে নয়, রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে দেশ স্বাধীন হয়েছে: গয়েশ্বর বাংলাদেশিদের জন্য ভিসা চালু করছে ওমান এমপি আনার হত্যার তদন্ত নিয়ে যা বলল ভারত সরকারি চাকরির শূন্যপদে দ্রুত নিয়োগের তাগিদ এমপি আজিম হত্যা মামলা কনক্লুসিভ পর্যায়ে রয়েছে: হারুন এমপি আজিম হত্যা: কলকাতায় তদন্ত শেষে যেসব তথ্য দিলেন ডিবির হারুন আজিমের দেহ খণ্ডাংশ উদ্ধার অভিযান শেষে ঢাকায় ফিরলেন ডিবির হারুন ঘূর্ণিঝড় রেমালের তাণ্ডব হেলিকপ্টার থেকে দেখলেন প্রধানমন্ত্রী ঈদের আগে পরে ৬ দিন মহাসড়কে চলবে না ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান-লরি ঘূর্ণিঝড় রেমালে পৌনে ২ লাখ হেক্টর ফসলি জমির ক্ষতি ভারত-পাকিস্তান ম্যাচে ‘লোন উলফ’ হামলার হুমকি মিশর-গাজা সীমান্ত দখলে নিয়েছে ইসরাইল