রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অগ্নিকাণ্ডের পর দুই মাঝিকে হত্যা – U.S. Bangla News




রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অগ্নিকাণ্ডের পর দুই মাঝিকে হত্যা

ইউ এস বাংলা নিউজ ডেক্স:-
আপডেটঃ ৯ মার্চ, ২০২৩ | ৮:০৯
কক্সবাজারের উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ৩০ ঘণ্টার ব্যবধানে দুই রোহিঙ্গা নেতাকে গুলি করে ও কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। বুধবার সকালে ও সোমবার রাতে পৃথক এ হত্যাকাণ্ড ঘটে। বুধবার খুন হওয়া রোহিঙ্গা নেতা সৈয়দ হোসেন ওরফে কালা বদা (৩৭) কুতুপালং ২ নম্বর ক্যাম্পের হেড মাঝি (নেতা) ছিলেন। আর সোমবার রাতে খুন হওয়া নূর হাবি ওরফে ওয়াক্কাস রফিক (৪০) বালুখালী ৯নং ক্যাম্পের নেতা (মাঝি) ছিলেন। উখিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মোহাম্মদ আলী জানান, কুতুপালং ২ নম্বর ক্যাম্পে বুধবার সকাল ৮টার দিকে রোহিঙ্গা নেতা সৈয়দ হোসেনকে গুলি করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। একদল মুখোশধারী বাড়ির সামনে দাঁড়ানো সৈয়দ হোসেনকে গুলি করে পালিয়ে যায়। গুলিবিদ্ধ হোসেনকে ক্যাম্পের এনজিও

পরিচালিত হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে রোহিঙ্গা নেতারা জানান, হেড মাঝি হিসাবে ক্যাম্পে আরসার বিরুদ্ধে সব সময় সোচ্চার ছিলেন সৈয়দ হোসেন। এ কারণে তাকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারণা তাদের। অপরদিকে, বালুখালী ৯ নম্বর ক্যাম্পে সোমবার রাত ১টার দিকে ব্লক-সি/৩ এর মৌলভী ইয়াছিনের শেডের সামনে গুলি করে রোহিঙ্গা নেতা নূর হাবি ওরফে ওয়াক্কাসকে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। পরিবারের সদস্যরা জানান, ২৫-৩০ জনের একটি মুখোশধারী দুর্বৃত্তের দল ওয়াক্কাসকে গুলি করে ও কুপিয়ে পালিয়ে যায়। তাকে উদ্ধার করে আইওএম পরিচালিত হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। মঙ্গলবার বালুখালী

৯ নম্বর ক্যাম্পের মাঝি ওয়াক্কাসকে হত্যার ৩০ ঘণ্টার মাথায় সৈয়দ হোসেন হত্যার ঘটনা ঘটে। ক্যাম্পগুলোতে একের পর এক হত্যাকাণ্ডে সাধারণ রোহিঙ্গারা ভীতির মধ্যে রয়েছেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক রোহিঙ্গা জানান, ক্যাম্পে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা নিয়ে আরসা সদস্যদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেছে মাঝিসহ শান্তিপ্রিয় রোহিঙ্গারা। এখন প্রতিবাদকারীদের টার্গেট করে হত্যা করছে আরসা সদস্যরা। ওয়াক্কাস নিহতের পর অন্য প্রতিবাদকারীরা টার্গেটে রয়েছে চিন্তা করে আতঙ্কে রয়েছেন তারা। ক্যাম্পে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা ১৪ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) অধিনায়ক অতিরিক্ত ডিআইজি সৈয়দ হারুন উর রশিদ জানান, বুধবার সকালে কুতুপালং ক্যাম্প-২ ইস্টে গুলির ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে পৌঁছলে দুষ্কৃতকারীরা পালিয়ে যায়। দুর্বৃত্তদের ধরতে পুলিশের

অভিযান চলছে।
ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


শীর্ষ সংবাদ:
বেইলি রোডে আগুন: সন্দেহজনক ২ পাইপলাইন গাজায় বিমান থেকে ত্রাণ ফেলল যুক্তরাষ্ট্র ঢাকার ৯০ শতাংশ ভবনে নকশার বিচ্যুতি সড়ক পরিবহণ আইনের আওতায় মালিকদের আনার প্রস্তাব ডিসিদের শনাক্তের পরও মিনহাজের লাশ পেতে ভোগান্তি দুয়ারে দুয়ারে ঘুরছেন ৬১ হাজার শিক্ষক-কর্মচারী সংগ্রামের পূর্ণাঙ্গ রূপরেখা স্বাধীনতার ইশতেহারে কাস্টমসের হয়রানিতে আমদানি শূন্য বইমেলার শেষ দিনে ভিড় বিক্রি দুই-ই কম পাকিস্তানে আজ প্রধানমন্ত্রী নির্বাচন, ৯ মার্চ প্রেসিডেন্ট ভোজ্যতেলের সাত রিফাইনারি পর্যবেক্ষণে: ভোক্তার ডিজি ঢাকা বার আইনজীবী ফোরামের ভোটের ফলাফল বাতিলের দাবি গণতন্ত্র মঞ্চ ও ১২ দলীয় জোটের সঙ্গে মির্জা ফখরুলের বৈঠক সংসদে সাবেক গণপূর্তমন্ত্রী ১৩০০ ভবন চিহ্নিত করা হলেও ভাঙা সম্ভব হয়নি বেইলি রোডে অগ্নিকা­ণ্ড: ভবনের ম্যানেজারসহ চারজন রিমান্ডে জার্মানির বিরুদ্ধে নিকারাগুয়ার মামলা ইউক্রেনে ‘আত্মহত্যার বাঁশিওয়ালা’ গাজায় গণহত্যার পক্ষে অবস্থান নিয়েছে বিএনপি-জামায়াত: পররাষ্ট্রমন্ত্রী শোকের শহরে আনন্দ মিছিল করল ছাত্রদল ‘আমি হয়তো আর দুই বছর খেলব’