রাগবিকন্যা কবিতার এ্যাথলেটিক্স-সাফল্য

অথর
নিজস্ব প্রতিবেদক   বাংলাদেশ
প্রকাশিত :২১ জানুয়ারি ২০২১, ১০:৫৩ পূর্বাহ্ণ | নিউজটি পড়া হয়েছে : 63 বার
রাগবিকন্যা কবিতার এ্যাথলেটিক্স-সাফল্য

নীলফামারীর কৃষক বাবা অমল চন্দ্র রায়। মা বাসন্তী রানী রায়ও কৃষিকাজ করেন। নিজেদের জমি নেই। অন্যের জমিতে চাষ করেন। আর্থিক অবস্থা ভালো না। কোনমতে একটি টিনের ঘর তুলেছেন। তাদের দুই মেয়ে, এক ছেলে। যতই দিন যাচ্ছে, তাদের দ্বিতীয় সন্তানটি ততই তাদের মুখ উজ্জ্বল করছে। তাদের সেই সন্তানটি মেয়ে, নাম কবিতা রায়।

কবিতার জন্ম ২০৪ সালের ৩০ আগস্ট। ষোড়শী এই মেয়েটি মূলত রাগবি খেলোয়াড়। রাগবিতে খেলেন উইঙ্গার পজিশনে। কদিন আগেই জাতীয় স্যান্ড প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছে শাহ একাডেমি ওমেন্স রাগবি টিম। এই দলের অধিনায়ক ছিলেন কবিতা।

সম্প্রতি দারুণ এক কীর্তি গড়েছেন কবিতা। বাংলাদেশ রাগবি ফেডারেশন ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মৌসুম আলী জনকণ্ঠকে এ প্রসঙ্গে বলেন, বঙ্গবন্ধু ৪৪তম জাতীয় এ্যাথলেটিক্স প্রতিযোগিতায় দুটি পদক অর্জন করেছে রাগবির কবিতা। সে ১০০ মিটার ও ২০০ মিটার দৌড়ে ব্রোঞ্জপদক পেয়েছে। আমার জানা মতে, রাগবির কোন খেলোয়াড় এর আগে জাতীয় এ্যাথলেটিক্স প্রতিযোগিতায় এমন কোন সাফল্য পায়নি।

উল্লেখ্য, এবারের জাতীয় এ্যাথলেটিক্স প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ আনসার ও ভিডিপি হয়ে অংশ নেন কবিতা। ১০০ মিটার স্প্রিন্টে তিনি ১২.৪০ সেকেন্ড এবং ২০০ মিটার স্প্রিন্টে ২৫.৭০ সেকেন্ড সময় নেন। এ নিয়ে কবিতার সঙ্গে কথা হয় জনকন্ঠের। তিনি বলেন, এবারই প্রথম জাতীয় এ্যাথলেটিক্স প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছি। এর আগে জুনিয়র এ্যাথলেটিক্সও খেলিনি।

কবিতা আনসারে যোগ দিয়েছেন ২০২০ সালে নবেম্বরে। এর আগে তিনি খেলতেন বিজেএমসির হয়ে (২০১৮-১৯)। স্কুলে থাকলেই ভালো এ্যাথলেটিক্স খেলতেন। জাতীয় আন্তঃস্কুল প্রতিযোগিতায় দীর্ঘ লাফে স্বর্ণপদক জেতার কৃতিত্ব আছে। এবারের জাতীয় এ্যাথলেটিক্স প্রতিযোগিতা শুরুর কিছুদিন আগে কবিতাই প্রস্তাব দেন তার নিজ সংস্থা আনসারকে এ্যাথলেটিক্সে অংশ নেয়ার ব্যাপারে। আনসারও বাজী হয়ে যায়। কবিতা শুরু করেন অনুশীলন। তার প্রস্তুতি ছিল প্রায় দেড় মাসের।

নীলফামারী সরকারী মহিলা কলেজে উচ্চ মাধ্যমিকের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী কবিতার আনসারে এখনও চাকরি স্থায়ী হয়নি। এ ব্যাপারে তার ভাষ্য, আমি আশাবাদী আনসারে আমার চাকরি স্থায়ী হবে। হলে আমি রাগবি ও এ্যাথলেটিক্স … দুটো খেলাতেই আরও বেশি মনোযোগ দিতে পারবো।

কবিতার ভবিষ্যত লক্ষ্য কি? আসন্ন বাংলাদেশ গেমসে রাগবি ও এ্যাথলেটিক্সে আনসারকে সাফল্য এনে দিতে চাই। আর রাগবি আন্তর্জাতিক পর্যায়ে খেলে দেশকে ভালো কিছু দিতে চাই।

সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।