বাংলাদেশ সোসাইটির সাবেক সভাপতি আজিজ মোহাম্মদ করোনায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি সবার কাছে দোয়া প্রার্থী

অথর
নিজস্ব প্রতিবেদক   বাংলাদেশ
প্রকাশিত :৬ এপ্রিল ২০২০, ৬:৪৯ পূর্বাহ্ণ | নিউজটি পড়া হয়েছে : 5249 বার
বাংলাদেশ সোসাইটির সাবেক সভাপতি আজিজ মোহাম্মদ করোনায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি সবার কাছে দোয়া প্রার্থী

বাংলাদেশ সোসাইটির ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য বাংলাদেশ সোসাইটির দুইবারের সাবেক সফল সভাপতি বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আজিজ মোহাম্মদ গত শুক্রবার করোনায় আক্রান্ত হয়ে নিউইযর্কের লং আইল্যান্ড এর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে।তার শারীরিক অবস্থা খুব একটা ভাল না,তাই তিনি দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন॥
তার দেহে অক্সিজেনের সমস্যা দেখা দিয়েছে তার অবস্থা সংকটাপন্ন ইউএসবাংলা কে তিনি হাসপাতাল থেকে নিজেই ফোন করে জানিয়েছেন কমিউনিটির সবাইকে তার শারীরিক অবস্থা জানানোর জন্য॥
আজিজ মোহাম্মদের সার্বিক খোঁজখবর সর্বক্ষণ যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন নিউইয়র্কের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী সোহাগ আজম॥সোহাগ আজ্ম ইউএসবাংলা কে বলেন আমি আজিজ ভাইয়ের সুস্থতা কামনা করছি তিনি তাড়াতাড়ি আমাদের মাঝে সুস্থ হয়ে ফিরে আসবেন মহান সৃষ্টিকর্তার কাছে এই প্রার্থনা করি॥

যুক্তরাষ্ট্রে প্রবাসী বাংলাদেশিরা প্রচন্ড উদ্বেগ এবং উৎকণ্ঠায় দিন কাটাচ্ছেন করোনাভাইরাস এ দীর্ঘ মৃত্যুর মিছিলের সাক্ষী হয়ে। গত ২৪ ঘন্টায় নিউইয়র্কে করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছেন ৫ জন বাংলাদেশী। এ নিয়ে নিউইয়র্কে এ যাবৎ করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন ৬৫ জন। গোটা যুক্তরাষ্ট্রে এখন পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা ৭০ জন।

নিউইয়র্কে করোনাভাইরাস এ আক্রান্তদের পাশে দাঁড়াতে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশ অনুযায়ী ১ হাজার জন বাড়তি সেনা সদস্য শুধুমাত্র নিউইয়র্ক অঙ্গরাজ্যে আজ থেকে পাঠানো শুরু হয়েছে অতিরিক্ত চাপ সামলানোর জন্য। এই ১ হাজার জনের মধ্যে রয়েছেন সেনা চিকিৎসক, নার্স, শ্বাসতন্ত্র বিশেষজ্ঞ ইত্যাদি।

নিউইয়র্কের বাতাসে বোবা কান্না এবং হতাশার মাঝে আশার আলো হয়ে এসেছে গভর্নর এন্ড্রো কুমোর আজকের সাংবাদিক সম্মেলনটি। আজ সকালে তিনি জানিয়েছেন গত কয়েকদিনের তুলনায় হাসপাতালে ভর্তির সংখ্যা তুলনামূলকভাবে বেশ কম। তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখলে এবং সবাই মিলে এভাবে সম্মিলিত প্রয়াস অব্যাহত রাখলে ধীরে ধীরে আক্রান্ত এবং মৃতের সংখ্যা এভাবেই কমে আসবে।

যদিও বিশ্লেষকরা বলছেন নিউইয়র্ক তার চূড়ান্ত ভয়াবহ পরিণতি থেকে এখনো আরো ৫ থেকে ৭ দিন দূরে আছে। ধারণা করা হচ্ছে নিউইয়র্কের বিভিন্ন হাসপাতালগুলোতে যে পরিমান পিপিই এবং ভেন্টিলেটর মজুদ আছে, সেগুলা আর অল্প কিছুদিনের মধ্যেই ব্যবহিত হয়ে যাবে এবং পর্যাপ্ত মেডিকেল সরঞ্জামের একটি ঘাটতি খুব শিগগিরই এখানে দেখা যেতে পারে। অনেক রোগী তখন বিনা চিকিৎসায় মারা যাবেন বলে আশঙ্কা প্রকাশ করা হচ্ছে। এ পরিস্থিতি এড়াতে গভর্নর এন্ড্রো কুমো ট্রাম্প প্রশাসনের কাছে ফেডারেল সহায়তা চেয়েছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।

আরও পড়ুন