বঙ্গবন্ধুর দেশে সবার বাড়ি থাকবে ঠিকানা থাকবে – U.S. Bangla News




বঙ্গবন্ধুর দেশে সবার বাড়ি থাকবে ঠিকানা থাকবে

ইউ এস বাংলা নিউজ ডেক্স:-
আপডেটঃ ২৩ মার্চ, ২০২৩ | ৫:২৬
বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের উন্নত সমৃদ্ধ দেশ গড়ে তোলার দৃঢ় প্রত্যয় পুনর্ব্যক্ত করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, এই বাংলাদেশ জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের দেশ। তিনি সব মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে চেয়েছিলেন। ভাগ্য পরিবর্তন করে দেশকে ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত উন্নত সমৃদ্ধ হিসেবে গড়ে তুলতে চেয়েছিলেন। সেই স্বপ্ন আমরা পূরণ করতে পারব ইনশাআল্লাহ। তিনি আরও বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলেই দেশের মানুষের উন্নতির জন্য কাজ করে। আমাদের একটাই লক্ষ্য– বঙ্গবন্ধুর দেশে কোনো মানুষ ঠিকানাবিহীন থাকবে না। আমরা চাই, দেশের সবার ঘরবাড়ি থাকবে, ঠিকানা থাকবে। গতকাল বুধবার প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ণ প্রকল্প-২-এর চতুর্থ পর্যায়ে দেশের বিভিন্ন এলাকার ৩৯ হাজার

৩৬৫ ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমিসহ ঘর হস্তান্তর অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যুক্ত হয়ে এসব কথা বলেন শেখ হাসিনা। এ দিন গাজীপুরের শ্রীপুরের নয়াপাড়া আশ্রয়ণ প্রকল্প, সিলেটের গোয়াইনঘাটের নওয়াগাঁও আশ্রয়ণ প্রকল্প এবং বরিশালের বানারীপাড়ার বানারীপাড়া পৌরসভার উত্তর পাড় আশ্রয়ণ প্রকল্প এলাকায় আয়োজিত অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে উপকারভোগীদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। অনুষ্ঠান থেকে মাদারীপুর, গাজীপুর, নরসিংদী, রাজশাহী, জয়পুরহাট, চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও চুয়াডাঙ্গা জেলা এবং দেশের ১৫৯টি উপজেলাকে ভূমিহীন-গৃহহীনমুক্ত ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী। এর আগে পঞ্চগড় ও মাগুরা জেলার সব উপজেলাসহ মোট ৫২টি উপজেলাকে ভূমিহীন-গৃহহীনমুক্ত ঘোষণা করা হয়। ফলে চতুর্থ পর্যায়ের ঘর হস্তান্তর শেষে ভূমিহীন-গৃহহীনমুক্ত সর্বমোট জেলা ও উপজেলার সংখ্যা দাঁড়াল যথাক্রমে ৯ ও

২১১। শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতা স্বাধীনতা দিয়ে গেছেন। তিনিই ভূমিহীন ও গৃহহীনদের আশ্রয় দিতে গুচ্ছগ্রাম করেন। তাঁর পথ অনুসরণ করে দেশে কোনো ভূমিহীন ও গৃহহীন থাকবে না– আমরা সে লক্ষ্যে কাজ করছি। ১৯৯১ সালের ঘূর্ণিঝড়ের সময় তৎকালীন বিএনপি সরকার মানুষের পাশে দাঁড়ায়নি দাবি করে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ওই দুর্যোগের সময় কোনো ব্যবস্থাই নেয়নি বিএনপি সরকার। আওয়ামী লীগ সারা বাংলাদেশে ছড়িয়ে থাকায় আমিই প্রথমে ফোন পাই। আমরাই প্রথম ছুটে গিয়েছিলাম মানুষের পাশে। ত্রাণ বিতরণ করতে গিয়ে দেখি, মানুষ ও পশুপাখির লাশ একসঙ্গে ভাসছিল। আমরা সেখানে বিভিন্ন অঞ্চলে ঘুরে ঘুরে মানুষকে সাহায্য করি এবং মরদেহ সৎকারের ব্যবস্থা করি। তিনি বলেন, তখনকার সংসদে আমরা

বিষয়টি তুলে ধরলাম। তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া তখন ঘুমিয়ে ছিলেন, জানতেন না কিছু। তখনকার তিন বাহিনী প্রধান গলফ খেলছিলেন। ঘূর্ণিঝড়ে যে এত বড় ক্ষতি হয়ে গেছে, সেটাও তাঁরা জানতেন না। অথচ সারাদেশ তছনছ, একেবারে চট্টগ্রামসহ পুরো অঞ্চল। সে সময় অনেক মানুষ উদ্বাস্তু হয়ে কক্সবাজারে বস্তিতে থাকত। ক্ষমতায় আসার পর আমরা তাদের পুনর্বাসন করেছি। জনপ্রতিনিধিদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রাকৃতিক দুর্যোগ বা অন্য কোনো কারণে যদি ভূমিহীন পাওয়া যায় জানাবেন। যেসব এলাকায় সবাইকে ঘর দেওয়া হয়েছে, সেখানেও কোনো ভূমিহীন পরিবার থাকলে তালিকাটা করবেন। তাদেরও ঘরের ব্যবস্থা করব। আমরা ছিন্নমূল মানুষের কর্মসংস্থানেরও সুযোগ করে দিচ্ছি। তিনি বলেন, জাতির পিতা শুধু স্বাধীনতাই দেননি, এ দেশের

মানুষের জীবন-জীবিকার জন্য তিনি যে কর্মসূচি হাতে নিয়েছিলেন, সেগুলো যদি বাস্তবায়ন করে যেতে পারতেন– তাহলে বাংলাদেশ স্বাধীনতার পরই উন্নত-সমৃদ্ধ সোনার বাংলা হিসেবে গড়ে উঠত। কিন্তু তাঁকে হত্যা করে পঁচাত্তরের পর যারা ক্ষমতা দখল করেছে, তারা এ দেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলেছে, শোষণ করেছে, নিজেদের ভাগ্য গড়েছে। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে বিভিন্ন উপজেলার আশ্রয়ণ প্রকল্পে মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, সংসদ সদস্য, জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা উপকারভোগীদের হাতে ২ শতাংশ জমিসহ ঘর এবং নামজারি ও খাজনার দলিলপত্র তুলে দেন। অনুষ্ঠানের শুরুতে গণভবন প্রান্ত থেকে আশ্রয়ণ প্রকল্পের আওতায় ঘর পাওয়া মানুষের জীবনমানের উন্নয়ন নিয়ে ভিডিওচিত্র প্রদর্শন করা হয়। পরে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় প্রান্ত

থেকে মোনাজাত ও দোয়া করা হয়। গণভবন প্রান্ত থেকে অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব তোফাজ্জল হোসেন মিয়া।
ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


শীর্ষ সংবাদ:
বন্দুকধারীদের হামলায় সাবেক বিধায়কসহ ২ ভারতীয় রাজনীতিক নিহত ‘স্যার আমার সন্তানদের জামিন দিয়েন না’, হাইকোর্টে বৃদ্ধ মায়ের আর্তনাদ সবুজের বুক চিরে শত শত অবৈধ পুকুর খনন, ক্ষোভে ফেটে পড়লেন এলাকাবাসী আবেদন খারিজ: জ্ঞানবাপী মসজিদে চলবে পূজা ‘বোরকার ভেতরে দুষ্টামি-ভণ্ডামি বেশি লুকিয়ে থাকে’ শিক্ষার্থীকে অধ্যক্ষ গাজা যুদ্ধ: ইসরাইলি দূতাবাসের সামনে শরীরে আগুন দিলেন মার্কিন সেনা চ্যাম্পিয়ন লিভারপুল মালয়েশিয়ায় কর্মী নিয়োগের কোটা স্থগিতের বিষয়ে পুনর্বিবেচনার অনুরোধ ট্রেড গ্রুপের ১০ রাষ্ট্রদূতকে ডেকে পাঠাচ্ছে সরকার ‘বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অনেক দেশের জন্য অনুপ্রেরণা’ যুক্তরাষ্ট্র-বাংলাদেশ সম্পর্কের নতুন অধ্যায় শুরু করতে আগ্রহী: পররাষ্ট্রমন্ত্রী ট্রাম্পের কাছে ‘নালিশের’ সাড়ে ৪ বছর পর মুখ খুললেন প্রিয়া সাহা বিপিএলকে কেন ‘সার্কাস লিগ’ বললেন হাথুরুসিংহে আগামী চার মাসে প্রাথমিকে নিয়োগ হবে ১০ হাজার শিক্ষক ‘আমরা বিমান হামলায় মরিনি কিন্তু ক্ষুধায় মরছি’ গাজায় দুধের সরবরাহ বন্ধ, ২ মাসের শিশুর মৃত্যু রাখাইনের রাজধানীর কাছে পুলিশ স্টেশন দখল করল আরাকান আর্মি রঙ-বেরঙের লণ্ঠনে রঙিন চীন মিয়ানমারে বিদ্রোহীদের দখলে সেনাবাহিনীর অস্ত্রভর্তি ৫ ট্রাক বাংলাদেশের অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রবৃদ্ধির জন্য আর্থিক খাতের সংস্কার প্রয়োজন: বিশ্বব্যাংকের এমডি