প্রথমবারের মতো হজের নিরাপত্তায় নারীরা

অথর
নিজস্ব প্রতিবেদক   বাংলাদেশ
প্রকাশিত :২২ জুলাই ২০২১, ৯:৩৩ পূর্বাহ্ণ
প্রথমবারের মতো হজের নিরাপত্তায় নারীরা

এই প্রথমবারের মতো হজের নিরাপত্তা নারী সেনা মোতায়েন করেছিল সৌদি সরকার। গত এপ্রিল থেকে কয়েক ডজন নারী সেনা মুসলমানদের পবিত্র স্থান মক্কা এবং মদিনার নিরাপত্তার দায়িত্বপালন করে আসছিল। তবে হজে এবারই মক্কা এবং মদিনাতে নারী সেনাদের দেখা গেছে। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের একটি প্রতিবেদনে এমনটি বলা হয়েছে।

মক্কার গ্র্যান্ড মসজিদের দায়িত্বে থাকা সৌদি নারী সেনা মোনা বলেন, আমার বাবা একজন সেনা সদস্য ছিলেন। তার মৃত্যুর পর আমি তাঁর দেখানো পথে হাঁটার সিদ্ধান্ত নেই। এই পবিত্রস্থানের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা আমার জন্য সম্মানের।

বাবার মতোই নিজেকে সেনাবাহিনীর সদস্য বানাতে চেয়েছিলেন সৌদির নাগরিক মোনা। মোনা পরবর্তীতে সিদ্ধান্ত নেন যে পবিত্র মক্কাতে প্রথম যে সব নারীরা নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবে তার মধ্যে তিনি একজন হবে। এরপর তিনি সৌদি সেনাবাহিনীতে যোগদান করেন।
মোনা রয়টার্সের কাছে নিজের নাম জানালেও বংশীয় পদবি জানাতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিলেন।

সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান দেশটিকে আধুনিকায়ন এবং বৈদেশিক বিনিয়োগকারীদের আকৃষ্ট করতে ব্যাপক সামাজিক ও অর্থনৈতিক সংস্কারের উদ্যোগ নিয়েছেন। ভিশন ২০৩০ নামের পরিচিত সৌদি যুবরাজের সংস্কার পরিকল্পনার আওতায় নারীদের গাড়ি চালনায় নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হয়েছে। অভিভাবকদের অনুমতি ছাড়া প্রাপ্ত বয়স্ক নারীদের ভ্রমণের অনুমতি দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এই সংস্কার পরিকল্পনায় বাস্তবায়ন করতে গিয়ে বিরোধীদের বিরুদ্ধে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান ধরপাকড় চালাচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। করোনাভাইরাস মহামারির কারণে দ্বিতীয়বারের মতো সীমিত হাজিদের অংশগ্রহণে হজ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এবার সৌদি আরবের থাকা বিভিন্ন দেশের ৬০ হাজার মানুষকে হজের অনুমতির দেওয়া হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।