জেষ্ঠ্য শিক্ষকদের কাণ্ডে স্তম্ভিত জবি – U.S. Bangla News




জেষ্ঠ্য শিক্ষকদের কাণ্ডে স্তম্ভিত জবি

ইউ এস বাংলা নিউজ ডেক্স:-
আপডেটঃ ৮ এপ্রিল, ২০২৩ | ৫:২১
সমন্বিত গুচ্ছ পরীক্ষার পক্ষে অবস্থান নেওয়ায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের এক অধ্যাপককে জ্যেষ্ঠ শিক্ষকদের মারধরের ঘটনায় স্তম্ভিত প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। তাঁরা বলছেন, শিক্ষকরাই এমন কর্মকাণ্ড করলে তাঁরা শিক্ষার্থীদের কী শেখাবেন। দায়ীদের বিচারও দাবি করেছেন অনেকে। গত বৃহস্পতিবার উপাচার্যের কনফারেন্স রুমে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষ একাডেমিক কাউন্সিল সভায় ভূগোল ও পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আব্দুল কাদেরকে মারধর করেন তাঁর সহকর্মীরা। তাঁরা সবাই মূলত আওয়ামী লীগপন্থি শিক্ষক। সভায় অধ্যাপক কাদের গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষায় থাকার পক্ষে মত দেন। এ সময় গুচ্ছের বিপক্ষের কয়েক শিক্ষক তাঁর সঙ্গে বাগ্বিতণ্ডা শুরু করেন। এক পর্যায়ে শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আবুল কালাম মো. লুৎফর রহমান, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক আবুল হোসেন, প্রাণিবিদ্যা

বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল্লাহ আল মাসুদ, দর্শন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক হাফিজুল ইসলাম, মনোবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আকরাম উজ্জামানসহ কয়েকজন মিলে অধ্যাপক কাদেরকে মারধর করেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও ট্রেজারার তাঁদের শান্ত করতে গিয়েও ব্যর্থ হন। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণরসায়ন ও অনুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক জাকারিয়া মিয়া বলেন, শিক্ষকদের এমন আচরণ কাম্য নয়। শিক্ষকদের জন্য এমন ঘটনা মানানসই না। জাতির কাছে শিক্ষকদের নিয়ে নেগেটিভ বার্তা যায়। এ রকম আচার-আচরণ আমাদের বর্জন করা উচিত। বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুষদের ডিন অধ্যাপক এসএম মাসুম বিল্লাহ বলেন, শিক্ষকদের আচরণ আরও সুন্দর ও পরিমার্জিত হওয়া উচিত। বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আবু সালেহ সেকেন্দার এ

ঘটনার বিচার দাবি করে ফেসবুকে লিখেছেন, ‘একজন ডিন এবং শিক্ষক সমিতির নেতা আমাদের একজন প্রিয় সহকর্মীর গায়ে হাত তুলেছেন। ঘটনার নিন্দা জানাই এবং ওই ডিনসহ অভিযুক্তদের শাস্তি চাই। আশা করি, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ডিনকে তাঁর পদ থেকে সরিয়ে দেবেন। কারণ ডিনের দায়িত্ব শিক্ষকের গায়ে হাত দেওয়া নয়।’ বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আকতার হোসাইন বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের কাছ থেকে এমন আচরণ কাম্য নয়। শিক্ষকরা আমাদের অভিভাবক। তাঁদের আরও মার্জিত হওয়া দরকার। উপাচার্য অধ্যাপক ইমদাদুল হক বলেন, যাই ঘটেছে তা শিক্ষকদের কাছ থেকে কখনোই কাম্য নয়। এটা শিক্ষকসুলভ আচরণ না। এই সভায় একজন সদস্য হিসেবে পক্ষে-বিপক্ষে সবার কথা বলার অধিকার আছে। একাডেমিক কাউন্সিল মিটিংয়ে

আমাদের সামনে এমন একটা ঘটনা ঘটবে তা কাম্য ছিল না। শিক্ষকদের এমন ঘটনা দেখার জন্য প্রস্তুত ছিলাম না। এর জন্য আমি লজ্জিত, মর্মাহত।
ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


শীর্ষ সংবাদ:
উত্তেজনার মধ্যেই ইসরাইলে অর্ধশতাধিক রকেট হামলা চলিয়েছে হিজবুল্লাহ চলতি বছর ছাড়াতে পারে তাপমাত্রার রেকর্ড মধ্যরাতে অতর্কিত হামলায় ছাত্রলীগের ৪ নেতাকর্মী আহত ইরান-ইসরাইল উত্তেজনা, যে কৌশল নিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র দুই মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে দুই বন্ধু নিহত হামলার ভয়ে জরুরি বৈঠকের ডাক নেতানিয়াহুর মার্কিন ঘাঁটিতেও হামলার হুমকি ইরানের ইরান-ইসরাইল উত্তেজনা: মার্কিন বাহিনীর অবস্থান পরিবর্তন যে অজানা শূন্যতা নিয়ে কাটে প্রবাসের ঈদ আওয়ামী লীগ নেতাসহ গুলিবিদ্ধ ৩ মিয়ানমারে সংঘাত, বিস্ফোরণে কাঁপছে টেকনাফ সীমান্ত ইরানি প্রেসিডেন্টকে পাকিস্তান সফরের আমন্ত্রণ জানালেন আসিফ আলী জারদারি স্যাটেলাইট ট্যাগ লাগানো সুন্দরবনের কুমির এখন চিতলমারীতে ভূমধ্যসাগরে নৌকা ডুবে ৯ জনের মৃত্যু গরম উপেক্ষা করে কক্সবাজারে পর্যটকের ঢল অস্ট্রেলিয়ার পর ফিলিস্তিনকে রাষ্ট্রের স্বীকৃতি দিতে প্রস্তুত ইউরোপ ৬ রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক পেল ৮ ডিএমডি পদ্মায় গোসলে নেমে লাশ হলেন বাবা ও খালু, ছেলে নিখোঁজ ইসরাইলে কীভাবে ইরান হামলা করবে, জানাল যুক্তরাষ্ট্র কানাডার নির্বাচনে ভারত চীন ও পাকিস্তানের হস্তক্ষেপের অভিযোগ